সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৮ পূর্বাহ্ন

পটুয়াখালীতে করোনা আক্রান্ত নারায়নগঞ্জ ফেরত গার্মেন্টস কর্মীর মৃত্যু; উপকূলে আতঙ্ক

পটুয়াখালীতে করোনা আক্রান্ত নারায়নগঞ্জ ফেরত গার্মেন্টস কর্মীর মৃত্যু; উপকূলে আতঙ্ক

গোফরান বিশ্বাস পলাশঃ

পটুয়াখালীতে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে
মো. দোলোয়ার হোসেন দুলাল হাওলাদার (৩২) নামের এক নারায়নগঞ্জ ফেরত গার্মেন্টস কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে জেলার দুমকি উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের দুমকি গ্রামের নিজ বাড়ীতে তিনি মারা যান বলে নিশ্চিত করেছেন পটুয়াখালী সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহাঙ্গীর আলম।

দুলালের মৃত্যুর পর ওই গ্রামটি লকডাউন করে জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট। এ সংক্রান্ত এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত
দুমকী গ্রামে আগমন ও বহির্গমন সম্পূর্ন নিষিদ্ধ করা হল। নিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তবে এ করোনা আতঙ্কের মধ্যেও জেলার উপকূলীয় এলাকা গুলোতে গত দু’তিন দিনে কয়েকশ’ মানুষ নৌপথে পটুয়াখালীর উপকূলে প্রবেশ করেছে। উপকূলীয় এলাকার গ্রামগুলোতে এদের নিয়ে আতংক দেখা দিয়েছে।

দুমকি ইউএনও শংঙ্কর কুমার বিশ্বাস জানান, গত ৫ এপ্রিল নারায়নগঞ্জ থেকে মো. দেলোয়ার হোসেন দুলাল হাওলাদার জ¦র নিয়ে তার গ্রামের বাড়ীতে আসেন। খবর পেয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা গিয়ে তার নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠায়।
বৃহস্পতিবার দুপুরে গুরুতর অসুস্থ হয়ে দুলাল মারা যান। দুলালের বাড়ীতে তার বাবা আব্দুস সোবাহান হাওলাদার গর্ভবতী স্ত্রী ও এক ছেলে রয়েছেন।
এছাড়া দুলালের সংস্পর্শে এসেছিলেন গ্রামবাসী। নিহদ দুলাল’র দাফন করোনা প্রটোকল অনুযায়ী সম্পন্ন করা হয়েছে।

সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহাঙ্গির আলম জানান, গত ৭ এপ্রিল দুলালের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছিল। বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে তার নমুনা পরীক্ষায় পজেটিভ আসে। এর আগে দুপুরে তিনি মারা যান। শুক্রবার তার পরিবারের নমুনা সংগ্রহ করা হবে। এছাড়াও ওই এলাকার প্রায় ২০০ মানুষ যারা তার সংস্পর্শে এসেছে তাদের নমুনা সংগ্রহ করার তালিকা করা হচ্ছে।
সিভিল সার্জন আরও জানান, পটুয়াখালী থেকে এ পর্যন্ত ১১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়েছে এর মধ্যে ৪৫ জনের রিপোর্ট আমরা হাতে পেয়েছি। যার মধ্যে এই প্রথম করোনা পজেটিভ এসেছে।

এদিকে ঢাকা, নারায়ন গঞ্জ থেকে গত দু’তিন দিনে কয়েকশ’ মানুষ নৌপথে পটুয়াখালীর উপকূলে প্রবেশ করেছে। এরা গলাচিপা, দুমকী, রাঙ্গাবালী,
কলাপাড়া জেলার উপকূলীয় এলাকার গ্রাম গুলোতে এদের নিয়ে আতংক দেখা দিয়েছে।
কোন কোন জায়গায় গ্রামবাসী এদের কোয়ারেন্টাইনে রেখেছেন, আবার কোন জায়গায় প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগ এদের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করেছেন। তবে অধিকাংশের অবস্থান সনাক্ত করে কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে না পারায় জেলার উপকূলীয় এলাকার মানুষ করোনা সংক্রমন আতঙ্কে রয়েছেন।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 aponnewsbd
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!