শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন

প্রধান সংবাদ
তালতলীতে বিদুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু কলাপাড়ায় ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মীকে কুপিয়ে জখম; আটক-৪ আমতলীতে ১০ কেজি চালের জন্য ভাইয়ের ছেলের ছুরিকাঘাতে কৃষক চাচা খুন মরহুম ইঞ্জিনিয়ার কুতুব উদ্দিন’কে গলাচিপা আ.লীগের শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন কলাপাড়া প্রেসক্লাবে পৌর প্যানেল মেয়র হুমায়ুন কবির স্বস্ত্রীক চা-চক্রে মিলিত গলাচিপায় গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার কলাপাড়ায় পারস্পরিক শিখন কর্মসূচী প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ প্রকল্পের উপজেলা কর্মশালা নিউজপোর্টাল বন্ধ করাটা আত্মঘাতি হবে-প্রেস ইউনিটি আদালত এখন আমার ভালোই লাগে-চিত্রনায়িকা পরীমনি কলাপাড়ায় অনলাইনে উদ্ভিদ বিক্রি করে সফলতা
গলাচিপায় ছাত্রলীগের জন্ম ইতিহাস ও বর্তমান আওয়ামী লীগ

গলাচিপায় ছাত্রলীগের জন্ম ইতিহাস ও বর্তমান আওয়ামী লীগ

গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি।। সরকারি দলের মামলা, হামলা, পুলিশের লাঠিচার্জ, কাঁদানো গ্যাস, রাবার বুলেট ও পুলিশ প্রশাসনের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করার মধ্য দিয়ে গলাচিপা থানা ছাত্রলীগের জন্ম। আর সেদিন যেসব দুঃসাহসিক ছাত্রনেতারা সেই দুর্গম গিরিপথ পাড়ি দিয়ে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ছাত্রলীগ,তাঁদেরকে আজ শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছেন তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

সেসব ছাত্রনেতাদের দুর্বিষহ জীবনযাপন ও অনেক ত্যাগের বিনিময়ে আজকের এই শক্তিশালী আওয়ামী লীগ। কিন্তু সদ্য ঘোষিত গলাচিপা উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে বিএনপি, জামায়াত, শিবির ও রাজাকারদের সন্তান অন্তভুর্ক্ত হওয়ায় তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, দুঃসময়ের ছাত্রনেতাদের পরিবারকে কমিটিতে মূল্যায়ন করা হয়নি এবং অনেককে কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

আরও অভিযোগ উঠেছে দলের সাংগঠনিক কাঠামো নিয়ে। ভালো একটি সংগঠন যুবলীগের অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও কৃষকলীগ মৃত ঘোড়া। দলের চিন্তা শ্রমিকলীগ ও মৎস্যজীবীলীগ নিয়ে, কারণ এ দুটোর মধ্যে রস পাওয়া যায়। এসব নিয়ে একটি লিফলেট সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে ও জনগণের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

প্রশ্নবিদ্ধ আওয়ামী লীগের এ কমিটির দায়কার? কার ইশারায় এ কমিটি করা হয়েছে?-এমন প্রশ্ন তৃণমূল আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের।
অনেক খড়, কুটো পুড়িয়ে তৈরি এ সংগঠনে বিএনপি, জামায়াত, শিবির,রাজাকারদের সন্তান কিংবা আওয়ামী লীগের শিকড় খুঁজে পাওয়া যায়না এমন বিতর্কিত লোকদেরকে কমিটি থেকে বাদ দেয়ার জোর দাবি করেন প্রতিষ্ঠাকালিন অনেক প্রবীণ ছাত্রনেতারা।

জানা গেছে,গলাচিপা থানা ছাত্রলীগের জন্ম ইতিহাস সে এক করুণ ইতিহাস। ১৯৬২ সালে চরবিশ্বাস ইউনিয়নের মো.ছিদ্দিককে আহ্বায়ক করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে গলাচিপা থানা ছাত্রলীগের যাত্রা শুরু। এ বছরে ৩/৪ মাসের মাথায় পটুয়াখালী জেলা ছাত্রনেতা মরহুম হাবিবুর রহমান ও মরহুম আবদুছ ছালাম এসে তাদের নেতৃত্বে পানপট্টি ইউনিয়নের আবুল কালাম আজাদকে সভাপতি ও মরহুম মু.শাহজাহান মিয়াকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৯ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করেন।

এই ১৯ জনের মধ্যে অনেকের মৌখিক সমর্থন থাকলেও কাজকর্মে পাওয়া যেতনা।এর কারণ ছিলো সরকারের বিরুদ্ধে দল করা যেন নানা ঝামেলায় জড়িয়ে পড়া। তৎকালিন সময়ে গলাচিপা ছাত্র ইউনিয়ন খুব শক্তিশালী ছিল। বিনা কারণে ছাত্রলীগদের নানাভাবে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ ও হয়রানি করত।সংখ্যায় কম বিধায় ছাত্রলীগ কোন প্রতিবাদ করতনা। ছাত্রলীগের সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রত্যেকে ৩ জন করে সদস্য সংগ্রহে মাঠে কাজ শুরু করেন।তাঁদের মধ্যে মোফাজ্জেল হোসেন মন্টু, রেজাউল করিম হাওলাদার, মরহুম তালুকদার আ.ছত্তার মল্লিক, মরহুম কালাম মো.ইছা,সরদার জাহাঙ্গীর কবির, মরহুম মোহন মিয়া, মরহুম গিয়াস উদ্দিন এলাহী, মরহুম জাহাঙ্গীর আকন(রাঙ্গাবালী) ও মরহুম মো.কুদ্দুস (ছোটবাইশদিয়া) অন্যতম।

এদের দুঃসাহসিক কর্মকান্ড, সীমাহীন ত্যাগ, কঠোর পরিশ্রম, নিরলস ও একাগ্রচিত্তে কাজ করার ফলে ছাত্রলীগ ধীরে ধীরে শক্তিশালী হতে শুরু করে।

১৯৬৬ সালে জেলা ছাত্রনেতা আশ্রাব আলী খান ও এম এ রশিদ এসে সম্মেলন করে মোফাজ্জেল হোসেন মন্টুকে সভাপতি ও রেজাউল করিম হাওলাদারকে সাধারণ সম্পাদক করে ৩১সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ঘোষণা করেন। এদের নেতৃত্বে ছাত্রলীগ বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে সংগঠনের মজবুত ভিত্তি স্থাপনে সক্ষম হয়।

১৯৬৯ সালে থানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন মরহুম আ.বারেক মিয়া আর সাধারণ সম্পাদক ছিলেন পানপট্টি ইউনিয়নের মু.শাহজাহান মিয়া।

১৯৭০ সালে পূর্ব পাকিস্তানের শেষ নির্বাচন। নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থীআ.বারেক মিয়া এমপিএ নির্বাচিত হয়ে দক্ষিণ এলাকায় জনপ্রিয় নেতা হিসেবে সুখ্যাতি লাভ করেন।

১৯৭৩ সালে আ.বারেক মিয়া পুনরায় থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন এবং রেজাউল করিম হাওলাদার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এদের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ পূর্ণতা পায়। পরবর্তীতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মরহুম আ.বারেক ঢালী বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করার অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পটুয়াকালী-৩ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থী হয়ে এমপি নির্বাচিত হয়ে এ জনপদে নতুন নেতৃত্বে আসেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মরহুম আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন। এ আসনে তিনি চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে দক্ষিণাঞ্চলে কিংবদন্তি নেতা হিসেবে সুপরিচিতি লাভ করেন।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে দল তাঁকে বস্ত্র প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন।মূলত সেই সময় থেকেই দক্ষিণাঞ্চলের এ ভূমি আওয়ামী লীগের উর্বর ভূমিতে রূপান্তরিত হয়ে নৌকার শক্ত ঘাঁটি হিসেবে চিহ্নিত হয়।

কিম্ত হারানো দিনের কথা ও সদ্য ঘোষিত উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে বিতর্কিত ব্যক্তিদের অন্তভুর্ক্তি সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠাকালিন ছাত্রনেতা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো.রেজাউল করিম হাওলাদার বলেন,‘১৯৬৬ সালে গলাচিপা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মনোনিত হয়ে নিরলসভাবে কাজ করার মধ্য দিয়ে আমি আওয়ামী লীগে পদার্পন করি।অদ্যবধি দলের জন্য নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

১৯৯১ সালের পর থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগে কিছু গণবাহিনীর লোক ঢুকে পড়েছে।আর এ বছর যে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে তা এ যাবৎ কালের সবচেয়ে নিকৃষ্টতম কমিটি। কারণ, এখানে রাজাকারের পুত্র,ভাই,আত্মীয়স্বজন,বিএনপিএবং জামাতের লোকজন অন্তভুর্ক্ত হয়েছে’।

থানা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আবুল কালাম আজাদের কাছে দুঃসময়ের ছাত্রলীগ ও বর্তমান আওয়ামী লীগ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,‘১৯৬২সালে আমি গলাচিপা থানা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মনোনিত হই।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 aponnewsbd
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!