আমতলীতে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে গ্রামের শিক্ষকরা শহরে! | আপন নিউজ

সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৫:১৫ অপরাহ্ন

প্রধান সংবাদ
কলাপাড়ায় মসজিদের ইমামের দাড়ি ধরে টানাটানি ও মারধর আমতলীর প্রবাহমান কাউনিয়া খাল উন্মুক্ত রাখার দাবীতে কৃষকের বিক্ষোভ ও সমাবেশ আমতলীতে গলায় ফাঁস দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পড়–য়া ছাত্রের আত্মহত্যা গলাচিপায় শিকল দিয়ে গাছের সাথে বেঁধে কিশোর নির্যাতনের ঘটনায় আটক-৩ কলাপাড়ায় জমিজমা বিরোধ কে কেন্দ্র করে হামলা; আহত-৫ ভাতা নয়, মৃত্যুর আগে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নিজের নাম দেখে যেতে চান রাজ্জা কলাপাড়ায় মাদকাসক্ত যুবতীকে কারাদণ্ড গলাচিপায় আন্তর্জাতিক নার্স দিবস পালিত রাঙ্গাবালীতে নাবালিকা ধর্ষণ; অভিযুক্ত ছ্যানা বশার গ্রেপ্তার জামায়াত-শিবির ও শান্তি কমিটি মুক্ত আ.লীগ কমিটির দাবী আমতলী মুক্তিযোদ্ধাদের
আমতলীতে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে গ্রামের শিক্ষকরা শহরে!

আমতলীতে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে গ্রামের শিক্ষকরা শহরে!

আমতলী প্রতিনিধিঃ

বরগুনার আমতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক বদলিতে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে প্রত্যান্ত গ্রামা লের বিদ্যালয়ের কোঠা কেটে শহরের বিদ্যালয়ে বদলি হয়েছেন। এতে প্রত্যান্ত গ্রামা অঞ্চলের শিক্ষা ব্যবস্থা ধংস হয়ে যাচ্ছে এমন অভিযোগ এনে অভিভাবক মোঃ হাসান মৃধা শিক্ষা সংশ্লিষ্ট দপ্তরসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন।
জানাগেছে, বরগুনার আমতলী উপজেলায় ১৫২ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। ওই বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে আমতলী পৌর শহরে ৯ টি বিদ্যালয়। ওই সকল বিদ্যালয়ে শিক্ষকের পদ রয়েছে ৯’শ ১০ টি। বর্তমানে কর্মরত আছে ৭’শ ৮৫ জন। ১’শ২৫ জন শিক্ষকের পদ শুন্য রয়েছে। এদিকে এ বছর জানুয়ারী মাসে শিক্ষক বদলি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এই কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকেই শুরু হয়েছে শিক্ষক বদলি বানিজ্য। মোটা অংকের টাকা বিনিময়ে গ্রামা লের শিক্ষকরা কোঠা কর্তন করে আমতলী পৌর শহরের বিদ্যালয় বদলি হয়ে আসছেন। এতে গ্রামা লের বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা কার্যক্রম ধংসের মুখে পরেছে। শিক্ষা ব্যবস্থার এমন করুন দশার অবস্থা জানিয়ে শিক্ষানুরাগী মোঃ হাসান মৃধা শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরসহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ করেছেন।
খোজ নিয়ে জানাগেছে, আমতলী পৌর শহরের আমতলী মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী অনুপাতে শিক্ষকের পদ রয়েছে ১৩ টি কিন্তু ওই বিদ্যালয়ে বর্তমানে শিক্ষক কর্মরত রয়েছেন ২১ জন। আমতলী একে সংলগ্ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদ রয়েছে ১৪ টি কিন্তু শিক্ষক কর্তরত আছেন ১৮ জন। ছুরিকাটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পদ রয়েছে ৬ টি কিন্তু শিক্ষক কর্মরত রয়েছেন ৯ জন। গ্রামের বিদ্যালয়গুলো থেকে কোঠা কর্তন করে শিক্ষকরা পৌর শহরের বিদ্যালয়ে কোঠা সৃষ্টি করে বদলি হয়ে এসেছেন। এতে গ্রামের শিক্ষা ব্যবস্থা ধংসের মুখে পরেছে। দ্রুত শহরের বিদ্যালয়গুলো থেকে শিক্ষক পদ কর্তন করে গ্রামের বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক সমন্বয় করার দাবী জানিয়েছেন অভিভাবকরা। কুকুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী রয়েছে ৫’শ৫০ জন। ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী অনুপাতে শিক্ষক থাকার কথা ১৪ জন কিন্তু শিক্ষক কর্মরত রয়েছে মাত্র ৮ জন। গ্রামের অনেক বিদ্যালয়ে ৪ জন শিক্ষকের পদ থাকলেও ওই সকল বিদ্যালয়ে শিক্ষক কর্মরত রয়েছেন মাত্র ২ জন। গ্রামের ৮০ ভাগ বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংঙ্কট রয়েছে। এদিকে ২০১৬ সালে আমতলী পৌর শহরের বিদ্যালয়গুলোতে যোগদানকৃত শিক্ষকরা কোন বিধিতে বদলি হয়ে আমতলী পৌর শহরের বিদ্যালয়গুলোতে এসেছেন এমন কোন তথ্য আমতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে নেই। অভিযোগ রয়েছে রাজনৈতিক নেতাদের প্রভাব খাটিয়ে উপজেলা শিক্ষা কমিটির অনুমোদন ছাড়াই তারা পৌর শহরের বিদ্যালয়ে বদলি হয়ে এসেছেন।
আমতলী পৌর শহরের কলেজ রোডের বাসিন্দা অভিভাবক মোঃ হাসান মৃধা বলেন, গ্রামের বিদ্যালয়গুলো থেকে শিক্ষকরা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস ও রাজনৈতিক নেতাদের ম্যানেজ করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সুবিধামত কোঠা কর্তন করে পৌর শহরের বিদ্যালয়ে কোঠা সৃষ্টি করে বদলি হয়ে এসেছেন। এতে গ্রামের শিক্ষা ব্যবস্থা ধংসের মুখে পরেছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রামা ল ও পৌর শহরের বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক সমন্বয়ের দাবী জানাই।
আমতলী বন্দর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেন বলেন, অনেক শিক্ষক গ্রামের বিদ্যালয়ের কোঠা কর্তন করে আমার বিদ্যালয়ে কোঠা সৃষ্টি করে বদলি হয়ে এসেছেন। এখানে আমার কোন দায় নেই। তিনি আরো বলেন এগুলো করেছে উপজেলা শিক্ষা কমিটি।
আমতলী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ মজিবুর রহমান বলেন, এ অনিয়মগুলো একদিনে হয়নি। দীর্ঘদিন ধরে হয়ে আসছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে ছাত্র অনুপাতে শিক্ষক সমন্বয় করা হবে।
বরগুনা জেলা প্রাথমকি শিক্ষা অফিসার এম মিজানুর রহমান বলেন, গ্রামের বিদ্যালয়গুলো থেকে শিক্ষকরা পৌর শহরের বিদ্যালয়ে এসে জড়ো হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে শিক্ষার্থী অনুপাতে সকল বিদ্যালয়ের শিক্ষক সমন্বয় করা হবে।
আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন বলেন, এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ মোস্তাইন বিল্লাহ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম সরোয়ার ফোরকান বলেন, গ্রামা অঞ্চলের বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থাকে সুগম করতে শহরের অবৈধভাবে সৃষ্ট কোঠা বন্ধ করে সকল বিদ্যালয়ে শিক্ষক সমন্বয় করা হবে বলে তিনি জানান।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 aponnewsbd
Design By MrHostBD
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!