বাউফলে সমাপনী পরীক্ষার ফি’র নামে অর্থ আদায় | আপন নিউজ

বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:১৯ অপরাহ্ন

প্রধান সংবাদ
প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক ভূষিত হলেন গলাচিপা থানার ওসি ফেরদৌস খান গলাচিপায় জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত শিক্ষার্থীদের অনলাইন সেবা দিতে আমতলী সোনালী ব্যাংকের চুক্তিপত্র স্বাক্ষর কলাপাড়ায় ভূমি জালিয়াতি ও অধিগ্রহণের ৬৩ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন আমতলীতে টাকা দিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে আমতলীতে ফুটবল খেলার দ্বন্ধের জের ধরে স্কুল ছাত্রকে পিটিয়ে জ’খ’ম আমতলীতে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবসের র‌্যালী কলাপাড়ায় পুকুরের পানি ব্যবহার করায় জ’খ’ম-৩ কলাপাড়ায় মাসুম বিল্লাহ সাগরকে পি’টি’য়ে জ’খ’ম কলাপাড়ায় ইউপি সদস্যর উপর হামলা; হাসপাতালে ভর্তি
বাউফলে সমাপনী পরীক্ষার ফি’র নামে অর্থ আদায়

বাউফলে সমাপনী পরীক্ষার ফি’র নামে অর্থ আদায়

এম.এ হান্নান, বাউফলঃ
বাউফলে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন ফির নামে নগদ অর্থ আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সোমবার (১১মে)  সকালে  উপজেলার চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের চর ব্যারেট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, বন্ধের মধ্যে বিদ্যালয় প্রধান মো. মামুন প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন ফির নামে পঞ্চম শ্রেণীর  শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অর্থ আদায় করে।  এবছর বিদ্যালয় থেকে ৩১জন শিক্ষার্থী সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিবে। প্রত্যেকজনের কাছ থেকে নেওয়া হয়েছে ৩শ টাকা করে। যা সম্পূর্ন বেআইনি ও অবৈধ। সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী সমাপনী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণকারী শিক্ষার্থীর কাছ থেকে রেজিস্ট্রেশন ফি/ ফরম ফিলাপ ফি নেওয়া যাবে না।
করোনায় সরকার কর্তৃক বন্ধ বিদ্যালয় খুলে এই অনৈতিক অর্থ আদায়ের ঘটনায় ওই প্রধান শিক্ষকের উপরে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।
অপরদিকে সুজন ও জান্নাত এই বিদ্যালয়র পুরানো শিক্ষার্থী। কিছুদিন অনুপস্থিতি থাকায় তাদের নাম কেটে দেওয়া হয় বিদ্যালয় হাজিরা খাতা থেকে। পরে আজ (সোমবার)  ১হাজার টাকা দিয়ে নতুন করে ভর্তি করানো হয় তাদের।
অভিযোগ এখানেই শেষ নয়। প্রধান শিক্ষক মামুন উপ-বৃত্তির নামের বিনিময় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অংকের অর্থ।
বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থী বলেন,’ আমাগো হেড স্যার (মামুন) ফরম ফিলাপের জন্য ৩শ’ করে টাকা দিতে বলছে। আমরা সবাই (৩১জন শিক্ষার্থী) ৩’শ করে টাকা দিছি।
 প্রতিবেদকের হাতে আসে অভিযোগের সত্যতা। দেখা যায় অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের বারান্দায় খালি গায়ে বসে আছে।  চার পাশে ভীড় আছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা। করোনা পরিস্থিতিতে নেই সামাজিক দূরত্ব। খোদ শিক্ষকসহ কারো মুখে নেই মাস্ক।  প্রধান শিক্ষকে হাতপাখা দিয়ে বাতাস দিচ্ছে এক শিক্ষার্থী। চোখে পড়ে নগদ টাকা নেওয়ার দৃশ্য।
এবিষয়ে কথা হয় অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মো. মামুন হোসেনের সাথে। তিনি রেজিস্ট্রেশন ফি বাবদ ৩শ করে  টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন।
তবে পুরানো শিক্ষার্থীকে নতুন করে ভর্তির বিষয়ে স্বীকার করেন বিদ্যালয় প্রধান মো. মামুন।
এবিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রিয়াজুল হক বলেন,’ আপনার (প্রতিবেদক) কাছে বিষয়টি জেনেছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved 2022 © aponnewsbd.com

Design By JPHostBD
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!