সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন

থানকুনি পাতা; গুজবে নির্ঘূম রাত কাটালে আমতলী-তালতলীর লক্ষাধিক মানুষ!

থানকুনি পাতা; গুজবে নির্ঘূম রাত কাটালে আমতলী-তালতলীর লক্ষাধিক মানুষ!

আমতলী প্রতিনিধিঃ

থানকুনি পাতা খেলে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত করতে পারবে না এমন গুজবে বরগুনার আমতলী-তালতলী উপজেলার লক্ষাধীক মানুষ নির্ঘূম রাত কাটিয়েছে। ঘটনা ঘটেছে মঙ্গলবার রাত সাড়ে বারোটা থেকে মোবাইলের মাধ্যমে। রাত জেগে মানুষ থানকুনি পাতা সংগ্রহ করে খেয়েছেন। এতে সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পরেছে। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
জানাগেছে, সারা বিশ্বব্যাপী মরণঘাতী করনা ভাইরাস ছড়িয়ে পরে। এতে সারা বিশ্বে মৃত্যের সংখ্যা প্রায় পাঁচ হাজার। আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দের লাখ। সম্প্রতি বাংলাদেশে ১০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী ধরে পরেছে। আক্রান্তরা সরকারের তত্বাবোধায়নে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সরকার দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন। সরকারের পদক্ষেপে মানুষের মাঝে স্বস্থি ফিরে আসলেও আতঙ্ক বিরাজ করছে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের এ পদক্ষেপকে ভুলন্ঠিত করতে একটি কুচক্রি মহল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে একটি গুজব ছড়িয়ে দেয়। মোবাইলের মাধ্যমে ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রথমে গুজবটি ছড়িয়ে পড়ে। মোবাইলে মাধ্যমে একটি চক্র ছড়িয়ে দেয় জৈনপুরী পীর সাহেব মাওলানা শাদাব আহম্মেদ সিদ্দিকী আল কোরাইশী স্বপ্নে দেখেছেন মঙ্গলবার দিবাগত রাতের মধ্যে যারা তিনটি অথবা পাঁচটি থানকুনি পাতা খেয়ে এক গ্লাাস পানি পান করে দ্ইু রাকাত নফল নামাজ আদায় করবে তাদের করোনা ভাইরাস আক্রান্ত করতে পারবে না। এবং বুধবারের সূর্য্য ওঠার পূর্ব মুহুর্ত পর্যন্ত খেতে হবে। মুহুর্তের মধ্যে এ গুজবটি আমতলী-তালতলী উপজেলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। গুজবটি ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে মানুষ হুমড়ি খেয়ে থানকুনি থাকা সংগ্রহ করে খেতে শুরু করেন। এবং একে এন্যের কাছে গুজবটি ছড়িয়ে দেয়। সারা রাত চলে এ গুজব। দুই উপজেলার প্রায় লক্ষাধীক মানুষ এ গুজবে পড়ে রাত জেগে থানকুনি পাতা সংগ্রহ করে খেয়েছেন। বুধবার সকালে নিছক গুজবের খবরটি সাধারণ মানুষের মাঝে পৌছলে তারা আরো আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। এ ঘটনার এলাকায় চা ল্যের সৃষ্টি হয়েছে। আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন মানুষকে সচেতন করার জন্য উপজেলার সর্বত্র মাইকিং করেছেন এবং এ গুজবে মানুষকে প্রতারিত না হওয়ার আহবান জানিয়েছেন।
কাউনিয়া গ্রামের জিয়া উদ্দিন জুয়েল বলেন, খবর পেয়ে প্রথমে বিব্রত বোধ করি। পরে সকলের সাথে সাথে আমিও পাঁচটি থানকুনি পাতা খেয়েছি।
পশ্চিম গাজীপুর গ্রামের সোহেল রানা বলেন, গভীর রাতে অপরিচিত একজনে মুঠোফোনে (০১৭৩৫৭৭৬৭৮৭) জানায় জৈনপুরি পীর সাহেব স্বপ্নে পেয়েছেন থানকুনি পাতা খেলে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত করতে পারবে না। তিনি আরো বলেন, এই খবর শুনে গুজবকারীকে ধমক দিয়ে নিবৃত করেছি।
তালতলীর গাবতলী গ্রামের মাওলানা জোবায়ের উদ্দিন বলেন, এটা একটি নেহায়েত গুজব। একটি কুচক্রিমহল মানুষকে বিভ্রান্তিতে ফেলে ফায়দা লোটার জন্য একটি গুজবটি ছড়িয়েছে। যারা এ গুজব ছড়িয়েছে তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানাই।
জৈনপুরী পীর সাহেবের সহকারী বাদল মিয়া বলেন, এ ঘটনায় আমরাও রাতে ঘুমাতে পারিনি। এটা একটি গুজব।
জৈনপুরী পীর সাহেব মাওলানা শাদাব আহম্মেদ সিদ্দিকী আল কোরাইশী মুঠোফোনে বলেন, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। এর সাথে আমার কোন সম্পর্ক নেই। একটি কুচক্রি মহল আমার নাম ব্যবহার করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারনা করেছে। কুচক্রিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া প্রয়োজন।
আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শংকর প্রসাদ অধিকারী বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে থানকুনি পাতা খাওয়ার সাথে কোন সম্পর্ক নেই। একটি মহল মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে দিতে এ কাজটি করেছে।
আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন বলেন, এ বিষয়টি আমি জেনেছি। মানুষের মাঝে আতঙ্ক ও বিভ্রান্ত ছড়ানোর জন্য একটি মহল এ কাজটি করেছে। প্রতারকদের ফাঁদে যাতে মানুষ না পড়ে সেই জন্য মানুষকে সচেতন করতে উপজেলার সর্বত্র মাইকিং করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, যারা এ কাজটি করেছে তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 aponnewsbd
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!