কলাপাড়ায় জনপ্রতিনিধিদের দুয়ারে দুয়ারে এক যুগ; তবুও জোটেনি প্রতিবন্ধী ভাতা | আপন নিউজ

শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৬:৩৬ অপরাহ্ন

প্রধান সংবাদ
আমতলীতে তরমুজ আবাদে ব্যস্ত কৃষক নারী শ্রমিকরাও ঘরে বসে নেই একমাত্র শেখ হাসিনার সরকার দেশে উন্নয়নে সম অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন-এমপি মহিব কলাপাড়ায় শহীদ আলাউদ্দিন স্মরনে স্মরন সভা কলাপাড়া রিপোর্টার্স ক্লাব’র ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন গলাচিপায় পাতিহাঁস পাড়ল কালো ডিম কলাপাড়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ড’র তরিকুল’র বিরুদ্ধে অবৈধ লেনদেনের অভিযোগ শিক্ষাক্রমে বিতর্কিত পাঠ্যক্রম বাতিলের দাবিতে কলাপাড়ায় মানববন্ধন আমতলী উপজেলা পরিষদ পুনঃনির্বাচনে প্রার্থী নিয়ে ধুম্রজাল মৃত্যুর তিন বছর চার মাসেও নির্বাচন হয়নি আমতলী পৌরসভার ২ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে কলাপাড়ায় সম্পত্তি জোরপূর্বক দখল করার পাঁয়তারা; থানায় অভিযোগ
কলাপাড়ায় জনপ্রতিনিধিদের দুয়ারে দুয়ারে এক যুগ; তবুও জোটেনি প্রতিবন্ধী ভাতা

কলাপাড়ায় জনপ্রতিনিধিদের দুয়ারে দুয়ারে এক যুগ; তবুও জোটেনি প্রতিবন্ধী ভাতা

রিপোর্ট: জাহিদ রিপনঃ

ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ ইউপি সদস্যদের দুয়ারে দুয়ারে এক যুগ ধর্না দিয়েও প্রতিবন্ধী ভাতা মেলেনি পটুয়াখালীর কলাপাড়ার টিয়াখালী ইউনিয়নের ইটবাড়িয়া গ্রামের রফেজ আকন। আশ্বাসের পর আশ্বাসেও প্রাপ্তির ফলাফল শূন্য থাকায় হতাশ ষাটার্ধো এ মানুষটি এখন প্রতিবন্ধী ভাতার আশা ছেড়ে দিয়েছেন। অচল দুটি পায়ে কুঠার নিয়ে ঘুরে বেড়ান মানুষের বাড়ী বাড়ী। কুঠার দিয়ে কাঠ চেরাইয়ে করে বর্তমানে চলছে তার সংগ্রামী জীবন। এ কাজ না পেলে রাস্তার পাশে কিংবা পতিত জমিতে জন্মানো শাক-সবজি তুলে বিক্রি করে যা আয়-রোজগার হয় তা দিয়ে খেয়ে না খেয়ে চলছে সংসার।
রফেজ আকন জানান, তৃতীয় শ্রেনীর ছাত্র থাকাকালীন সময়ে বর্ষাকালে একদিন স্কুল ছুটি শেষে বাড়ী ফেরার পথে পা পিছলে পড়ে কোমড়ে ব্যাথা পেয়েছিলেন। অর্থাভাবে তার দরিদ্র পিতা চিকিৎসা করাতে পারেননি। প্রতিদিন দুর্বিসহ যন্ত্রনা হত। সপ্তাহ যেতে না যেতেই ব্যাথা বেড়ে যাওয়ায় সুদে টাকা এনে পিতা হামেদ আকন তাকে নিয়ে যায় উপজেলা সদর হাসপাতালে। অপারেশন করানো হলেও চিকিৎসা চালিয়ে যেতে না পারায় আস্তে আস্তে তার দুটি পা বাঁকা হয়ে যায়। অনেক বছর পর নিজ চেস্টায় বাঁকানো দু’পায়ে হাটতে পারলেও ফিরে পাননি আর স্বাভাবিক জীবন। শাররীক প্রতিবন্ধী হলেও বাবার মৃত্যুর পর জীবন ধারনের জন্য নেমে পড়েন শক্ত পরিশ্রমী কাজে। দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলেন, বয়স হয়েছে। এখন আর শরীর চলেনা।
ক্ষোভ প্রকাশ করে রফেজ আকন বলেন, চেয়ারম্যান সুজন মোল্লার সময় প্রতিবন্ধী ভাতার জন্য আবেদন জমা দিয়েছি। এরপরের চেয়ারম্যান শিমু মীরার কাছে গেছি। মেম্বরদের কাছে গিয়েছি। অনেকে ভাতা পেলেও আমার ভাগ্যে জোটেনি।
কলাপাড়া উপজেলা সমাজ কল্যান কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদানের জন্য তালিকায় অর্ন্তভূক্তি করার এখতিয়ার কেবলমাত্র সংষিøস্ট ইউনিয়ন পরিষদের। তবে রফেজ আকন কেন এক যুগেও ভাতা প্রাপ্তির জন্য নির্বাচিত হলেন না বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved 2022 © aponnewsbd.com

Design By MrHostBD
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!