রবিবার, ২৫ Jul ২০২১, ০৭:১০ অপরাহ্ন

করোনা’র ত্রাণ বিতরনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে প্রশাসন হার্ডলাইনে

করোনা’র ত্রাণ বিতরনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে প্রশাসন হার্ডলাইনে

বিশেষ আপন নিউজ প্রতিবেদকঃ

করোনা সংক্রমন এড়াতে লাগাতার লকডাউনে কর্মবিমূখ হয়ে পড়া দিন এনে দিন খাওয়া মানুষের বাড়ী বাড়ী সরকারী ত্রান সুবিধা পৌঁছে দিতে স্থানীয় প্রশাসন কঠোর অবস্থান নিয়েছে। একটি দরিদ্র মানুষও যাতে সরকারের দেয়া ত্রান সুবিধা থেকে বাদ না পড়ে এ লক্ষে ত্রান বিতরনে শতভাগ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে স্থানীয় প্রশাসন কর্ম পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্র জানায়, দুর্যোগ ও ত্রান মন্ত্রনালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষা করে স্থানীয় প্রশাসনকে না জানিয়ে কতিপয় ব্যক্তি, সামাজিক সংগঠন ত্রান কার্যক্রম পরিচালনা করায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সমন্বয়হীনতা দেখা দিয়েছে। তাই করোনার ত্রান কার্যক্রম পরিচালনা নিয়ে কলাপাড়া ইউএনও একটি নোটিশ জারী করেছেন। এতে বলা হয়েছে করোনা ভাইরাস উপলক্ষে কর্মহীন হয়ে পড়া দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মধ্যে ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান, এনজিও যারা খাদ্য সামগ্রী দিতে ইচ্ছুক তাদেরকে ইউএনও’র ত্রান তহবিলে জমা দেয়ার জন্য অনুরোধ করা হল। এ নির্দেশনার বাইরে কাউকে ত্রান বিতরন না করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

সূত্রটি আরও জানায়, একটি দুস্থ পরিবারও যাতে ত্রান সুবিধা বঞ্চিত না হয় সেজন্য প্রতিটি ইউনিয়ন, পৌরসভার ওয়ার্ড পর্যায়ে ১২ সদস্যের দুর্যোগ
ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন করার জন্য বলা হয়েছে। যারা যেকোন ধরনের দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবেলা ও দুস্থ মানুষের কাছে ত্রান সহায়তা পৌঁছে দিতে পারবে।
পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে ত্রান বিতরনের সময় ট্যাগ অফিসারের উপস্থিতি নিশ্চিত করা সহ ত্রান বিতরন সম্পন্ন হওয়ার পর ট্যাগ অফিসার গন ইউএনও’র কাছে প্রতিবেদন দাখিল করবে। এছাড়া উপজেলা পর্যায়ের এসব ত্রান কার্যক্রম
পরিচালনার জন্য জেলার একজন পদস্থ কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। যিনি জেলা প্রশাসকের কাছে জবাবদিহি করবেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা তুপন কুমার ঘোষ বলেন, ’করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা দুস্থ মানুষের বাড়ী বাড়ী ত্রান পৌঁছে দিচ্ছি। এপর্যন্ত কলাপাড়ায় ৭৯ মেট্রিক টন চাল ও নগদ ৩ লক্ষ ৬২ হাজার টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। যা দিয়ে ত্রান কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। এছাড়া কিছু সামাজিক সংগঠন, ব্যক্তি, মেয়র, এমপি নিজেদের অর্থায়নে দুস্থ মানুষের পাশে দাড়িয়েছে।’

ইউএনও আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বলেন, ’করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা ত্রান কার্যক্রমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছি। প্রতিটি ওয়ার্ডে আগামী ২৪ঘন্টার মধ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠনের জন্য বলা হয়েছে। ট্যাগ অফিসার ছাড়া ত্রান কার্যক্রম পরিচালনায় নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়েছে। ত্রান দিতে ইচ্ছুক ব্যক্তি, সামাজিক সংগঠনকে প্রশাসনের কাছে জমা দিতে বলা হয়েছে। এরপরও যদি কোন ব্যত্যয় পরিলক্ষিত হয় অভিযুক্ত’র বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্র জানায়, কলাপাড়ায় ১১টি নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআর এ প্রেরন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ৫টির রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।পরিস্থিতি মোকাবেলায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমেপ্লক্সে ১টি সহ মোট ১৩টি আইসোলেশন ইউনিট প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এসব ইউনিটে চিকিৎসক সহ স্বাস্থ্য কর্মীদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জানায় সূত্রটি।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 aponnewsbd
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!