মতামতঃ দেশের ক্রান্তিলগ্নে বিত্তবানরা হোম কোয়ারান্টাইনে | আপন নিউজ

শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন

মতামতঃ দেশের ক্রান্তিলগ্নে বিত্তবানরা হোম কোয়ারান্টাইনে

মতামতঃ দেশের ক্রান্তিলগ্নে বিত্তবানরা হোম কোয়ারান্টাইনে

মতামত ডেস্কঃ

জনমনে প্রশ্ন দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে বিত্তবানরা হোম কোয়ারান্টাইনে কেন? ত্রাণের ভয়ে নাকি, করোনার ভয়ে?
বিশ্বের দুইশরও বেশি দেশে ছেয়ে গেছে প্রাণঘাতি করোনা
ভাইরাস। সংক্রমণ রোধে সবধরণের চেষ্টা করেও ঠেকানো যাচ্ছে না প্রকোপ। উল্টো প্রতিদিন আক্রান্তের তালিকায় যুক্ত হচ্ছে হাজারো মানুষ। এতে করে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সংক্রমিতের সংখ্যা, ভারি হচ্ছে লাশের সারি।

দিন দিন বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতিও হচ্ছে ভয়াবহ, আক্রান্তের পরিমাণ কমছেই না, থামছে না মৃত্যুও। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ভয়াবহ করোনার বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন তাঁর পাশে সাধ্যানুযায়ী সবার দাঁড়ানো কর্তব্য। গরীব ও মধ্যবিত্ত পরিবারে ক্ষুধার জ্বালা করোনা যুদ্ধের মতো ভয়াবহ অবস্থা বিরাজমান। চারিদিকে শুধু ক্ষুধার্ত মানুষের আর্তনাদ। এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে দেশে শিল্পকারখানা, এনজিও এবং গার্মেন্টস শিল্প চালু হলে বাংলাদেশের অবস্থা হবে আরো ভয়াবহ।

সবাই নিরবে এই দুরাবস্থায় ভুক্তভোগী হয়ে দিন পার করছেন। করোনায় সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন নিম্নআয়ের মানুষেরা। এরই মধ্যে খাদ্য সংকটে পড়েছেন এ সব খেটে খাওয়া বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এমন সংকটময় মুহূর্তে তাদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন অনেকেই। কিন্তু দেশের নামকরা বিত্তশালী ব্যাক্তিরা তেমন কেউ এগিয়ে আসছে না, এই নাখেয়ে থাকা গরীব মানুষের পাশে। গরীব ও মধ্যবিত্ত পরিবারের ক্ষুধার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর মানসিকতা নেই “ধনেই বড়, মনে নয় মানুষগুলো”।

বড় বড় ব্যাংক, হাসপাতালের মালিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মালিক, সংবাদমাধ্যমের মালিক বড় বড় ধনাঢ্য ব্যবসায়ীরা ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এ সময়ে সমাজের গরীব, দুস্হ মানুষের জন্য এগিয়ে এলে পরিস্থিতি অন্যরকম হতো।
তাদের মতো বড় ধনাঢ্য মানুষের সাহায্যের আজ বড় প্রয়োজন। বাংলাদেশের কর্মহীন হত-দরিদ্র মানুষ তাদের হাতের দিকে তাকিয়ে আছে। সবচেয়ে বড় কথা জীবনের বড় শিক্ষা-
মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য।

এই মহামুসিবতের সময় আমরা অবাক হয়ে লক্ষ্য করছি এলাকার বিত্তবানরা যেভাবে এগিয়ে আসা উচিত ছিলো সেভাবে তারা এগিয়ে আসছেন না। তারা অনেকেই যেনো আত্মগোপনে আছেন। তাদের এ ভূমিকায় বিপদে পড়া মানুষরা কষ্ট পাচ্ছেন। তাদের আহাজারি বাড়ছে।

মনে রাখবেন ‘দানের তুল্য যশ নাই, গানের তুল্য রস নাই।’ বিত্তবানদের উপলব্ধি করতে হবে- জীবনে তারা অনেক অর্থসম্পদ উপার্জন করেছেন, বেঁচে থাকলে ভবিষ্যতে হয়তো আরও করবেন, কিন্তু মহৎ কাজে অর্থ ব্যয় করার সুযোগ জীবনে কমই আসে। দানের চেয়ে পুণ্য কাজ আর হয় না। প্রচলিত একটি প্রবচন- অর্থ মানুষকে পিশাচ করে তোলে, এ অর্থই আবার মানুষকে মহান করে তোলে। পবিত্র হাদিস শরিফে উল্লেখ রয়েছে- ‘যার দ্বারা মানবজাতি উপকৃত হয়, মানুষের মধ্যে তিনিই শ্রেষ্ঠ।

লেখকঃ মো. আবু ইউসুফ (প্রভাষক, হিসাববিজ্ঞান বিভাগ) সরকারি মোজাহারউদ্দিন বিশ্বাস কলেজ, খেপুপাড়া, পটুয়াখালী।

আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 aponnewsbd
Design By MrHostBD
error: সাইটের কোন তথ্য কপি করা নিষেধ!!